Main Menu

শরীয়তপুরে মাখন লাল সাধু স্মৃতি বৃত্তি প্রদান

শরীয়তপুরে মাখন লাল সাধু স্মৃতি বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠানে উপস্থিত অতিথি বৃন্দ। ছবি-দৈনিক হুংকার।

শরীয়তপুরে বীর মুক্তিযোদ্ধা মাখন লাল সাধু স্মৃতি বৃত্তি ২০১৮ প্রদান অনুষ্ঠিত হয়েছে। বীর মুক্তিযোদ্ধা মাখন লাল সাধু স্মৃতি সংসদ এ বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। ১০ এপ্রিল বুধবার সকাল ১০টায় সদর উপজেলার ৪৮নং কাশিপুর হিন্দুপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে অনুষ্ঠিত বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বিদ্যালয় এসএমসি’র সভাপতি দিলীপ কুমার সাধু। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সদর উপজেলা শিক্ষা অফিসার মো. নিয়ামত হোসেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন চিতলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুছ ছালাম হাওলাদার, বীর মুক্তিযোদ্ধা মাখন লাল সাধুর সহধর্মীনি ও মাখন লাল স্মৃতি সংসদের সভাপতি আশা রাণী সাধু, উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসার হামিদুল হক, মোহাম্মদ মহন মিয়া, মোহাম্মদ আজিজুল ইসলাম, মো. ফারুক আলম। এসময় উপস্থিত ছিলেন কাশিপুর হিন্দুপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শিরীন আক্তার, চর যাদবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রতন মন্ডল, চিতলিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক দেলোয়ার হোসেন, হোগলা মাকশাহার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মো. হায়দার আলী, ইসলামপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মোশারফ প্রমূখ।
স্মৃতি সংসদ সূত্র জানায়, মুক্তিযোদ্ধা মাখন লাল সাধু একজন সরকারি কর্মকর্তা ছিলেন। তিনি আংগারিয়া ইউনিয়ন পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শক পদে দায়িত্বরত ছিলেন। মুক্তিযুদ্ধে তার প্রত্যক্ষ ভূমিকা ছিল। তিনি ২০১৫ সালে মৃত্যু বরণ করেন। ২০১৭ সাল থেকে তার পুত্র মানিক লাল সাধু নিজস্ব অর্থায়নে বীর মুক্তিযোদ্ধা মাখন লাল সাধু স্মৃতি সংসদ প্রতিষ্ঠা করে। সেই থেকে প্রতি বছর আংগারিয়া ক্লাস্টারের অধীনে ২০টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণী মেধা বিকাশে বৃত্তি পরীক্ষা চালু করেন। ২০১৮ সালে ৮০ জন শিক্ষার্থী বৃত্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহন করে। মেধা যাচাইয়ে ৫ জন শিক্ষার্থী ট্যালেন্টপুলে ও ৯ জন সাধারণ বৃত্তি প্রাপ্ত হয়। ট্যারেন্টপুলে বৃত্তি প্রাপ্ত হয়েছে ইলমা হোসেন দিনা, আফিয়া আক্তার, মাসুমা আক্তার, ফাহাদ হোসেন ও ফাতেমা আক্তার মীম। সাধারণ বৃত্তি প্রাপ্তরা হলেন সোহাগ খান, ফয়সাল হোসেন, খাদিজা আক্তার, রাফিন ইসলাম রাহাত, সাদিয়া আক্তার, নাবিলা, ফারজানা আক্তার, তমা মন্ডল ও ইমরান হোসেন।
এ সময় আংগারিয়া ক্লাস্টার থেকে ২০১৮ সালে অনুষ্ঠিত সমাপনি পরীক্ষায় জিপিএ ৫ প্রাপ্ত ১১ জন শিক্ষার্থীকে মুক্তিযোদ্ধা মাখন লাল সাধু স্মৃতি সংসদের পক্ষ থেকে সম্মাননা প্রদান ও স্থানীয় একটি ক্রীড়া সংগঠনকে জার্চি প্রদান করা হয়।
বীর মুক্তিযোদ্ধা মাখন লাল সাধুর পুত্র মানিক লাল সাধু বলেন, আমার পিতার নামে স্মৃতি সংসদ প্রতিষ্ঠার মূল কারণ ছিল শিক্ষার মান বিকশিত করা। তাই শিক্ষা বৃত্তি প্রদান করা হয়। বিগত সময়ে আমি আংগারিয়া ক্লাস্টারের ২০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিলাম। আগামীতে উপজেলার ১২৩টি বিদ্যালয় এই শিক্ষা বৃত্তির আওতায় আনতে চাই। সে ক্ষেত্রে আপনাদের সহযোগিতা প্রয়োজন। বিগত দিনের মতো আমাকে সহায়তা করে আমার ইচ্ছা পূরণে আপনারা অংশীদার হবেন। তাহলেই আমি লক্ষ্যে পৌঁতে পারব।

Facebook Comments





error: Content is protected !!